bangladesh academy for securities markets

(Academic Wing of Bangladesh Securities and Exchange Commission)

বিনিয়োগ শিক্ষা কনফারেন্স, নোয়াখালী-২০২২

দেশব্যাপী বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নোয়াখালী জেলায় বিনিয়োগ শিক্ষা কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১৯ নভেম্বর) সকাল ১০ টায়  বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) এবং বাংলাদেশ একাডেমি ফর সিকিউরিটিজ মার্কেটসের (বিএএসএম) যৌথ উদ্যোগে এ বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

কনফারেন্সের প্রথম অধিবেশনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ। তিনি স্বাগত বক্তব্যে কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করা সকলকে বিএসইসির পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান। স্বাগত বক্তব্যের পর তিনি ‘Investing in the Bangladesh capital market’ শীর্ষক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

তিনি গত ৫০ বছরের শিক্ষার হার, দারিদ্র্যের হার, জীবনযাত্রার মান, নারী শ্রমশক্তির ক্ষেত্রে বাংলাদেশের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশের ঋণ স্থিতিশীলতা এবং প্রবৃদ্ধির কথা তুলে ধরেন। তিনি বাজার কাঠামো, বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের প্রোডাক্টগুলো, সাম্প্রতিক সময়ের বাংলাদেশের মুদ্রাস্ফীতি, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করেন।

এরপর ‘Smart & Intelligent Investor’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম। তিনি সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে কিভাবে স্মার্ট বিনিয়োগ সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোকপাত করেন।

প্রথম অধিবেশনে প্রবন্ধ উপস্থাপনার পর একটি প্যানেল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। বিএএসএম এর মহাপরিচালক ড. তৌফিক আহমেদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ডিএসইর পরিচালক মো. শাকিল রিজভী, আইল্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন এফসিএমএ,  ব্র্যাক ইপিএল স্টক ব্রোকারেজ লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুর রহমান এবং ডিএসই ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট রিচার্ড ডি রোজারিও।

প্যানেল আলোচনার শেষ অংশে অংশগ্রহণকারী বিনিয়োগকারীদের প্রশ্নের ভিত্তিতে প্রশ্নোত্তর পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। প্যানেল আলোচকবৃন্দ এবং বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান ও নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বিনিয়োগকারীদের প্রশ্নের উত্তর দেন।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালীর জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান, নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম পিপিএম এবং নোয়াখালী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা তপন চন্দ্র মজুমদার।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ও সাবেক উপাচার্য ড. এ কে আজাদ চৌধুরী।

তিনি বিএসইসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম নেতৃত্বের প্রশংসা করেন। দেশব্যাপী বিনিয়োগ শিক্ষা কার্যক্রমের নির্দেশনার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেন এবং এই কার্যক্রমের সফলতা কামনা করেন।

তিনি বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জীবনপণ যুদ্ধ করে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে চলেছেন ”।

তিনি ৫০ বছরে বাংলাদেশের অভাবনীয় উন্নয়ন সফলতার প্রশংসা করেন। গত কয়েক বছর বাংলাদেশ নানা বৈশ্বিক সংকটের মাঝেও বিশ্বের অধিকাংশ দেশের তুলনায় ভালো অবস্থান বজায় রেখেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্য রাখেন বিএসইসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম। তিনি কনফারেন্সের সকল বক্তার প্রশংসা করেন। ।

ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিনিয়োগের সমন্বয়ে বৃহদাকার পুঁজি সৃষ্টি হয় উল্লেখ করে তিনি বিনিয়োগকারীদের বলেন, আপনাদের বিনিয়োগ থেকেই ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ও শিল্পায়নের মাধ্যমে দেশের দেশের উন্নয়ন হবে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হওয়ার মাধ্যমে উন্নয়নের পথে রয়েছে এবং এই অগ্রগতিকে আরো এগিয়ে নিতে আমাদের কয়েকশো বিলিয়ন ডলার দরকার। এর সবটাই শুধু বাংলাদেশ থেকে পাওয়া সম্ভব নয়।

সেই প্রেক্ষিতে দেশের ব্যান্ডিং এবং সুনাম তৈরির প্রয়োজনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বৈদেশিক বিনিয়োগের আকৃষ্টের মাধ্যমে দেশের বাজারে বিনিয়োগ আনতে হবে। বুঝেশুনে বিনিয়োগ করে সব বাজারেই লাভ করা যায় মন্তব্য করে শিবলী রুবাইয়াত বলেন, বিনিয়োগ শিক্ষা গ্রহণ করুন এবং বিনিয়োগের ঝুঁকি বুঝে সঞ্চয়ের একটি অংশ সচেতন বিনিয়োগ করুন। তিনি বাংলাদেশের সোনালী ভবিষ্যতের আশাবাদ ব্যক্ত করেন এবং দেশ পরিচালনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

‘বিনিয়োগ শিক্ষা কনফারেন্স ২০২২’ এর দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হয় দুপুর আড়াইটায়। দ্বিতীয় অধিবেশনে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএসইসির অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম।

এরপর দ্বিতীয় অধিবেশনের প্যানেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মো. সাইফুর রহমান, বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মো. ছায়েদুর রহমান এবং নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এর সহকারী অধ্যাপক মিজ ফাতেমা জান্নাত। এরপর ধন্যবাদ বক্তব্য রাখেন নোয়াখালীর ভুলুয়া ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আবু জাফর মোহাম্মদ হারুন।

‘বিনিয়োগ শিক্ষা কনফারেন্স ২০২২’ এর সমাপনী বক্তব্য রাখেন বিএসইসির কমিশনার ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ। তিনি বলেন, “বিনিয়োগ শিক্ষা নিয়ে আমরা প্রতিটি জেলায় যাব। নোয়াখালীর সকলকে ধন্যবাদ। আপনাদের জেলায় এসে আমরা উৎসাহ পেয়েছি ”। তিনি কনফারেন্স অনুষ্ঠানের সাথে যুক্ত থাকা সকলের প্রশংসা করেন এবং ধন্যবাদ জানান।

তিনি অন্যান্যের  মধ্যে বলেন, “মূলধন অবশ্যই বাজার থেকে সংগ্রহ করা উচিত। পুঁজিবাজারই পারে দীর্ঘমেয়াদী মূলধনের যোগান দিতে”।